Wednesday , July 6 2022

হিন্দু শাস্ত্র মতে বিয়েতে কেন সাত পাকে ঘুরতে হয় জানেন?

বিয়ে মানেই এক পবিত্র সম্পর্ক। নারী ও পুরুষের আত্মার মিলন। এমন প্রচুর ভারী ভারী শব্দ বাড়ির বড়রা বলে থাকেন। আদতে কোনও যুবক যুবতির কাছে বিয়ে মানে সম্পর্কের পূর্ণতা ছাড়া কিছু নয়। তর্কের খাতিরে ‘পবিত্র বন্ধন’, ‘আত্মার সম্পর্ক’ এসব মেনে নেওয়া হলেও ‘অত্যাধুনিক’ কিছু মানুষ সাত পাকের প্রতিজ্ঞা মেনে নিতে নারাজ। কারণ, তাদের মনে হয় এই সাত পাক লিঙ্গভেদকে প্রাধান্য দেয়। বর্তমানে এমন ভ্রান্ত ধারণা ক্রমশ বৃদ্ধি পাচ্ছে। অবশ্য তার কারণও আছে। আজকাল অনেকের সাত পাকের মানেই জানে না।

বেদে বর্ণিত আছে, মতিভ্রম হলে মানুষ অনেক কিছুই করতে পারে। তার মধ্যে একটি হল বহুজনের সঙ্গে সম্পর্ক। মূলত এটি এড়াতেই এই সাত পাকের সৃষ্টি করেন ঋষি প্রজাপতি। এই সাতটি পাকের প্রতিটির আলাদা আলাদা অর্থ আছে।

প্রথম পাক
পাত্রের প্রতিজ্ঞা: তুমি আমার খাদ্যের দায়িত্ব নেবে। আমি তোমাকে ও আমাদের সন্তানদের সুখে স্বাচ্ছন্দ্যে রাখার দায়িত্ব নিচ্ছি।
পাত্রীর প্রতিজ্ঞা: আমি গৃহকর্মের যাবতীয় বিষয়ের জন্য দায়িত্ববদ্ধ। খাদ্য ও আর্থিক বিষয় ঠিক রাখার দায়িত্বও আমার।
ব্যাখ্যা: দম্পতি ঈশ্বরের কাছে প্রার্থনা করে তারা একে অপরের খাদ্য ও স্বাচ্ছন্দ্যের দায়িত্ব নেবে। একসঙ্গে পরিবারের দেখভাল করবে।

দ্বিতীয় পাক
পাত্রের প্রতিজ্ঞা: একসঙ্গে আমরা আমাদের বাড়ি ও সন্তানদের রক্ষা করব।
পাত্রীর প্রতিজ্ঞা: আমি সবক্ষেত্রে তোমার পাশে থাকব। তোমাকে শক্তি ও সাহস জোগাবো। তোমার সুখের প্রতি নজর রাখব। পরিবর্তে তুমি আমাকে আন্তরিকভাবে ভালবাসবে।
ব্যাখ্যা: দম্পতি প্রার্থনা করে দু’জন দু’জনের সুখ ও সুস্থ জীবনের দায়িত্ব নেবে।

তৃতীয় পাক
পাত্রের প্রতিজ্ঞা: আমরা যেন দিন দিন সম্বৃদ্ধশালী হয়ে উঠি। আমাদের সন্তানরা দীর্ঘজীবী হোক। তাদের পড়াশোনার সমস্ত ব্যবস্থা যেন আমরা করতে পারি।
পাত্রীর প্রতিজ্ঞা: আমি তোমাকে সারা জীবন ভালবাসব। সতীত্ব রক্ষা করব। বাকী সব পুরুষ আমার কাছে গৌণ।
ব্যাখ্যা: দম্পতি একসঙ্গে প্রতিজ্ঞা করে, তারা একসঙ্গে আধ্যাত্মিক কর্তব্য সম্পন্ন করবে। একে অপরকে ভালবাসবে আর সতীত্ব রক্ষা করবে।

চতুর্থ পাক
পাত্রের প্রতিজ্ঞা: তুমি আমাকে সম্পূর্ণ করবে ও আমার পবিত্রতা রক্ষা করবে। আশা করি আমরা মহৎ ও অনুগত সন্তানের জন্ম দেব।
পাত্রীর প্রতিজ্ঞা: আমি তোমায় আনন্দে ভরিয়ে দেব। আমার সাধ্যমতো প্রতিদিন আমি তোমাকে ভাল রাখতে পারব।
ব্যাখ্যা: দম্পতি একে অপরকে পরিপূর্ণতা দেওয়ার ও পবিত্রতা রক্ষার প্রতিজ্ঞা করে। যতদূর সম্ভব সবদিক থেকে একে অপরের পাশে থাকার প্রতিশ্রুতি দেয়।

পঞ্চম পাক
পাত্রের প্রতিজ্ঞা: তুমি আমার প্রিয় বন্ধু ও শুভাকাঙ্খী। তুমি আমাকে সম্বৃদ্ধ করার জন্য আমার জীবনে এসেছ। ভগবান তোমায় আশীর্বাদ করুন।
পাত্রীর প্রতিজ্ঞা: আমি তোমাকে সারা জীবন ভালবাসার ও সম্মান দেওয়ার শপথ নিচ্ছি। আমি তোমাকে বিশ্বাস করি। তোমার ইচ্ছা পূরণের চেষ্টা করব।
ব্যাখ্যা: দম্পতি একে অপরকে ভালবাসা ও সম্মান দেওয়ার প্রতিজ্ঞা করে।

ষষ্ঠ পাক
পাত্রের প্রতিজ্ঞা: তুমি আমার সঙ্গে ছ’টি শপথ নিয়েছ। এবার বল চিরকাল কি তুমি এভাবেই আমার সঙ্গে থাকবে, আমাকে ভালবাসবে?
পাত্রীর প্রতিজ্ঞা: আমি সবসময় তোমার পাশে থাকব।
ব্যাখ্যা: দম্পতি চিরকাল একসঙ্গে থাকার প্রতিশ্রুতিবদ্ধ হয়।

সপ্তম পাক
পাত্রের প্রতিজ্ঞা: এবার আমরা স্বামী-স্ত্রী, আমরা এক। এখন থেকে চিরকাল তুমি আমার আর আমি তোমার।
পাত্রীর প্রতিজ্ঞা: ভগবানকে সাক্ষী রেখে এখন থেকে আমি তোমার স্ত্রী। আমরা চিরকাল একে অপরকে ভালবাসব, সম্মান করব আর পবিত্রতা রক্ষা করব।
ব্যাখ্যা: উভয়ে ভগবানের আশীর্বাদ নিয়ে সম্পর্কের সূচনা করে। এই সম্পর্ক সততা, দায়িত্ব ও বিশ্বস্ততায় পরিপূর্ণ।

Check Also

জন্মাষ্টমীর দিন এই জিনিসটি অবশ্যই বাড়িতে রাখুন, সুখ ও সম্পদে ভরে উঠবে সংসার

জন্মাষ্টমীর দিন ছাড়া ভারতবর্ষজুড়ে ছোট্ট গোপালের আরাধনা করা হয়। কেউবা পুত্ররূপে আবার কেউবা ভগবান শ্রীকৃষ্ণকে ...

Leave a Reply

Your email address will not be published.