Saturday , January 28 2023

স্বপ্ন বন্ধুরাই দেখিয়েছিল’ ফেরিওয়ালা থেকে IIT-তে স্বপ্নের উড়ান নিয়ে অকপট ছোটন

মেধা কোনও শ্রেণীভেদ মানে না। তার কোনও গরিব বড়লোক নেই। পেটে ভাতের অভাব থাকলেও কঠোর পরিশ্রমে কোনও ফাঁকি না থাকলে অসম্ভবকেও সম্ভব করে দেখানো যায়। প্রমাণ করেছে IIT Kharagpur Student ‘ফেরিওয়ালা’ ছোটন ‘যদি তুমি স্বপ্ন দেখতে জানো তবে তুমি তা পূরণ করতেও পারবে।’ মিকি মাউসে’র (Mickey Mouse) স্রষ্টা ওয়াল্ট ডিজনির (Walt Disney) বিখ্যাত উক্তি, বাঁকুড়া ছোটনের (Bankura News) হয়তো জানা নেই। কিন্তু শুধুমাত্র মেধা থাকলেই যে অসম্ভবকে সম্ভব করে দেওয়া যায় তাঁর আদর্শ উদাহরণ ছোটন (Choton Karmakar)। পেটের জ্বালা মেটানোয় ভাত কম পড়লেও পড়াশুনায় ফাঁকি পড়তে দেয়নি বাঁকুড়ার মেধাবী ছেলেটি। বাবার সঙ্গে ঠেলা ঠেলে, লজঝড়ে বাইকে দোকান সাজিয়ে পাড়ায় ঘুরে ‘চুরি, ফিতে, খেলনা বিক্রি করা ছোটন আজ খড়গপুর আইআইটি-এর (Kharagpur IIT Student) পডুয়া। বাঁকুড়ার শালতোড়ার প্রত্যন্ত গ্রাম পাবড়ার বছর ১৮-এর এই ছেলেটার জীবন আজ যেন রূপকথাকেও হার মানায়।

বাবা, মা, এক দাদা ও ছোটনকে নিয়ে চার জনের ছোটো পরিবার। বাবা কানাই কর্মকার সকাল হলেই লঝঝড়ে এক মোটর বাইক নিয়ে গ্রামে গ্রামে চুড়ি, মালা, রঙ, সিঁদুর সহ অন্যান্য মনোহারি দ্রব্য ফেরি করতে বেরিয়ে যান। আর সেই রোজগারেই চলে চার জনের সংসার। কিন্তু এমন দিনও হয়েছে, বাবা বেরোতে পারেননি, সংসার চালাতে পড়ার বই ছেড়ে ঐ লঝঝড়ে বাইক নিয়ে ব্যবসায় বেরোতে বাধ্য হয়েছে ‘ফেরিওয়ালা’ ছোটন। অভাবকে নিত্য সঙ্গী, বাবাকে ব্যবসায় সহযোগিতা করার ফাঁকেই সর্বভারতীয় এন্ট্রান্স পরীক্ষায় সাফল্যের সঙ্গে উত্তীর্ণ হয়ে পৌঁছে গিয়েছে দেশের প্রথম সারির কারিগরি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে। গ্রামের মেঠো পথ ছেড়ে আগামীর স্বপ্ন পূরণে ছোটনের সামনে খুলে গিয়েছে খড়্গপুর (West Bengal News) আই.আই.টি (Kharagpur IIT Student)-এর সিংহ দুয়ার। গত বুধবারই সেখানে পা রেখেছে ছোটন। একজন খবরের কাগজ বিক্রেতা থেকে অ্যানিমেনশনের চলচ্চিত্রের অগ্রদূত হয়ে ওঠা ওয়াল্ট ডিজনির (Walt Disney) মতোই ছোটনের গল্পও বহুজনকে প্রেরণা জোগাবে বলে বিশ্বাস।

এই অসম্ভবকে স্পর্শ করার প্রতিক্রিয়ায় ছোটন জানায়, ”আইআইটি (IIT Institution) সেটাই একসময় জানতাম না। আমার এই সাফল্যে পরিবারের পাশাপাশি বন্ধুদেরও অনেক অবদান রয়েছে। আইআইটি-এর স্বপ্ন বন্ধুরাই দেখিয়েছিল। বন্ধুরা শুধু অর্থ নয়, মনোবলও যুগিয়েছে।” খড়গপুরের এই মেধাবী ছাত্রের উত্থান আরও অনেক পিছিয়ে পড়া প্রতিভাবানকে দিশা দেখাতে পারে। এই কথাটি বিশ্বাস করে ছোটন নিজেই। তাঁর ইচ্ছে, খড়গপুর আইআইটি থেকে সাফল্যের সঙ্গে পাশ করে আগামী দিনে অসহায় দুঃস্থ মানুষদের পাশে দাঁড়াবে। শুধুমাত্র অর্থের অভাবে অনেক দুঃস্থ মেধাবী ছাত্র-ছাত্রীর উচ্চ শিক্ষা বাধাপ্রাপ্ত হয়। তাদের পাশে দাঁড়ানোই আগামী দিনে অন্যতম লক্ষ্য।

Check Also

ছিলেন নাপিত, আজ ১৮ হাজার কোটি টাকার মালিক

রমেশ বাবু। বিশ্বের সেরা ধনী নাপিত। প্রতিভা ও সঠিক সিদ্ধান্তের জোরে দরিদ্র থেকে সচ্ছল জীবন ...

Leave a Reply

Your email address will not be published.