Friday , December 2 2022

সোনা ছাড়াও আর কি ধাতু দেওয়া থাকতো বাপ্পি লাহিড়ীর অলংকারে? জানলে অবাক হবেন আপনিও! রইল ভিডিও!

আচমকাই সকলকে কাঁদিয়ে না ফেরার দেশে চলে গিয়েছেন জনপ্রিয় সংগীত পরিচালক তথা গায়ক বাপ্পি লাহিড়ী। মুম্বাইয়ের ক্রিটিকেয়ার হাসপাতালে মাত্র 69 বছরে তার মৃত্যু হয়।

70 থেকে আশির দশকের মধ্যে বলিউডকে একাধিক জনপ্রিয় চলচ্চিত্রের সংগীত উপহার দিয়েছেন তিনি। তার একাধিক আইকনিক সং গুলির মধ্যে রয়েছে জিমি জিমি আজা আজা, ডিস্কো ড্যান্সার, শরাবি, চলতে চলতে। বলিউডে তিনি শেষবার গানের সুর দিয়েছিলেন বাগি থ্রি চলচ্চিত্রে।

হাসপাতাল সূত্রে জানা যায় বাপ্পি লাহিড়ী প্রায় একমাস যাবত হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন। কিন্তু তার শারীরিক অবস্থার উন্নতি হওয়ায় তাকে ছেড়েও দেওয়া হয়েছিল।কিন্তু ঠিক পরের দিনই আবারো তার স্বাস্থ্যের অবনতি হলে চিকিৎসকদের পরামর্শে তার পরিবারের সদস্যরা তাকে হাসপাতালে ভর্তি করে।

জানা যায় সে সময় তার একাধিক স্বাস্থ্য সমস্যা ছিল। এরপর মঙ্গলবার রাতেই অবস্ট্রাক্টিভ স্লিপ অ্যাপনিয়ার কারণে তার মৃত্যু হয়। বাপ্পি লাহিড়ীর মৃত্যুতে রীতিমতো শোকের ছায়া সংগীত জগতে।সম্প্রতি তার শেষকৃত্যতে উপস্থিত হয়েছিলেন টলিউড থেকে শুরু করে বলিউডের একাধিক সেলিব্রিটিরা।

বাপ্পি লাহিড়ী কে একেবারেই আলাদা ছন্দে চিনতেন তার অনুরাগীরা। সর্বদা সোনার গয়না পরে থাকতেন এই শিল্পী। সোনার গয়নার প্রতি তার আলাদাই ভালোবাসা ছিল। তার সোনাতে একটি বিশেষ ধাতু ব্যবহার করা হতো যা অত্যন্ত মূল্যবান। প্রসঙ্গত একজন আমেরিকান রকস্টারকে দেখে তার এই সোনার গয়না পড়ার ইচ্ছে প্রকাশ পেয়েছিল প্রথমবার।

এক ব্যক্তিগত সাক্ষাৎকারে তিনি জানিয়েছিলেন,তিনি অল্প বয়সেই ঠিক করেছিলেন যদি কোনদিনও তিনি সাফল্য পান সেক্ষেত্রে অবশ্যই আলাদা কিছু করবেন। বাপ্পি লাহিড়ীর মৃত্যুর পর অনেকেই তার এই সোনার গয়নার কী হবে তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিলেন। পরবর্তীতে তার পরিবার জানায় এই গয়নাগুলো কে একটি আলাদা জায়গায় সংগ্রহ করে রাখা হবে। তার অনুরাগীরা চাইলেই এই গয়না গুলিকে বাপ্পি লাহিড়ীর শেষ স্মৃতি হিসেবে দেখতে পারবেন।

 

Check Also

এত বড়ো গায়ক হয়েও নেই কোনো অহংকার! নিজের শহর জিয়াগঞ্জের ছাত্রীদের জন্য বিনামূল্যে ইংরেজী ক্লাস খুলছেন অরিজিৎ সিং

গায়ক অরিজিৎ সিং। যাকে একনামে সবাই চেনে। গানের জাদুতে মুগ্ধ আট থেকে আশি সকলেই। মুর্শিদাবাদের ...

Leave a Reply

Your email address will not be published.