Tuesday , December 6 2022

সারা বছরই এই মন্দিরের তালাবন্ধ ! একদিন খুললেই দেখা মেলে চমকানো দৃশ্যের

• ৩৬৪ দিন বন্ধ মন্দিরের দরজা

এই বিশেষ মন্দিরের নাগ শয্যায় ভগবান বিষ্ণুকে দেখতে পাবেন না, কারণ সেখানে থাকেন স্বয়ং শিব। এই মন্দিরকে ঘিরে রয়েছে নানান রহস্যের জাল। উজ্জয়িনীতে অবস্থিত নাগ চন্দ্রেশ্বর মন্দির। বছরের ৩৬৪ দিন এই মন্দির তালাবদ্ধ অবস্থায় থাকে। শুধুমাত্র শ্রাবণ মাসের শুক্লা পঞ্চমী তিথিতে এই মন্দিরের তালা খোলা হয়। তালা খুললেই দেখা মেলে চমকানো দৃশ্যের।

• নাগরাজের অবস্থান

একসময় ষোড়শ মহাজনপদের মধ্যে অবন্তী নগরের রাজধানী ছিল উজ্জয়িনী। এখানেই অবস্থিত নাগ চন্দ্রেশ্বর নামক মহাকালের মন্দির। বছরে শুধুমাত্র নাগপঞ্চমীর দিন মন্দিরের তিনতলায় আরাধনা করা হয় দেবাদিদেবের। কথিত আছে প্রতি বছর এই সময় ভক্তদের দেখা দিতে আসেন নাগরাজ। রীতিমতো মন্দির চত্বরে বহু মানুষ ভিড় জমান তক্ষকের আশীর্বাদ পাওয়ার জন্য। অনেকের আবার বিশ্বাস এই বিশেষ পুজোর দিন উপস্থিত হলে ইষ্ট দেবতার দেখা মেলে। ধুমধাম করে অত্যন্ত সমারোহের সাথে এখানে দেবাদিদেবের আরাধনা করা হয়।

• মূর্তির বিশেষত্ব

চন্দ্রেশ্বর মন্দিরে অবস্থিত প্রত্যেক মূর্তি থেকে শুরু করে মন্দিরের নকশাতেও যেন রয়েছে নানান কাহিনি। এই মন্দিরের মূর্তির বিশেষত্ব একটু অন্যরকম। সাধারণত হিন্দু শাস্ত্রে নাগ শয্যায় দেখতে পাওয়া যায় ভগবান বিষ্ণুকে। কিন্তু এই মন্দিরে নাগ শয্যায় থাকেন স্বয়ং শিব। দেবাদিদেবের মাথার উপর ছাতার মতো ঘিরে থাকেন নাগরাজ। এমনকি পার্বতী এবং গণেশের মাথায় দেখতে পাওয়া যায় তক্ষক নাগকে।

• প্রচলিত গল্প

এইরূপ বিশেষ মূর্তি নিয়ে প্রচলিত রয়েছে একটি গল্প। দেবাদিদেবকে খুশি করার জন্য বছরের পর বছর কঠোর তপস্যা করেন তক্ষক নাগ। এই কঠোর তপস্যায় দেবাদিদেব খুশি হয়ে তক্ষক নাগকে আশীর্বাদ করেন এবং নিজের কাছে রেখে দেন। এছাড়াও এই মন্দিরের মূর্তি থেকে দেওয়ালের সূক্ষ্ম কারুকার্য আপনার মনকে মুগ্ধ করবেই।

Check Also

শিবলিঙ্গ জড়িয়ে সাপ, মহাদেবের সঙ্গেই পূজিত হচ্ছেন নাগদেবতা, তুমুল ভাইরাল ভিডিও

মহাদেবের মন্দিরে মহাদেবের সঙ্গে পূজিত হচ্ছে এক বিষধর সাপ। মহাদেবের লিঙ্গ কে একেবারে জড়িয়ে ধরে ...

Leave a Reply

Your email address will not be published.