Tuesday , December 6 2022

শুধু বিষ্ণুই নন, মহাদেবকেও খুশি করতে করুন এই কাজগুলি, অভাব হবে না অর্থ-সম্পদের !

চাতুর্মাসের সময় তুলসী পূজা করা উচিত। দেবী তুলসী ভগবান বিষ্ণুর খুব প্রিয়, তার পূজা করলে ধন, সমৃদ্ধি এবং বৈবাহিক সুখ আসে।
হিন্দু ক্যালেন্ডার অনুসারে চাতুর্মাস (Chaturmas 2022) হল চারমাসব্যাপী একটি সময়, যা আধ্যাত্মিক (Spirituality) অনুশীলনের জন্য বিশেষভাবে গুরুত্বপূর্ণ। ভগবান শ্রীবিষ্ণু শ্রাবণ, ভাদ্র, আশ্বিন এবং কার্তিক— এই পবিত্র চারমাস যোগনিদ্রায় থাকেন। এই সময়ে স্থিতির সমস্ত ভার ন্যস্ত থাকে ভগবান শিবের (Lord Shiva) উপর। তাই এই সময়টিকে ভগবান বিষ্ণুর (Lord Vishnu) পাশাপাশি মহাদেবের পূজা করলে তা ভক্তের জন্য বিশেষ শুভ ফল নিয়ে আসে।

শ্রাবণ-ভাদ্র-আশ্বিন ও কার্তিক— এই চারটি মাস হল এমন একটি সময় যখন যখন শ্রীভগবান বিষ্ণু ক্ষীরসাগরে শ্বেতদ্বীপে যোগনিদ্রায় নিদ্রিত হন। বছরের এই চার মাসে মানুষের দেহ ও মনে রজো ও তমোগুণের অধিক প্রভাব দেখা যায়। ফলে অঘটন ঘটার আশঙ্কাও থাকে। তাই এই দীর্ঘ চারমাস সময়কালে শরীর ও মনের উপর নিয়ন্ত্রণ আনা আবশ্যিক। কোনও কোনও ভক্ত এই সময়ে তাই কৃষ্ণভক্তি বৃদ্ধির উদ্দেশ্যে চাতুর্মাস বা চাতুর্মাস্য ব্রত পালন করেন। চাতুর্মাস হল ভক্তি, তপস্যা, পবিত্র নদীতে স্নান, যজ্ঞ ও দান করার সময়। এই মাসগুলিতে, বিবাহ এবং অন্যান্য শুভ কার্যগুলি বন্ধ রাখা হয়। তবে এই সময়ে আধ্যাত্মিক উপাসনা এবং উপবাস করা উচিত। তাতে শরীর ও মনের শুদ্ধি ঘটে। দেহ ও মনের উপর নিয়ন্ত্রণ আসে।

দেবশয়নী একাদশী দিয়ে শুরু হয় চাতুর্মাস। ভগবান বিষ্ণু এই দিনে ঘুমিয়ে পড়েন এবং চার মাস পর প্রবোধিনী একাদশীতে জেগে ওঠেন। বিখ্যাত জগন্নাথ রথযাত্রার ঠিক পরেই আসে দেবশয়নী একাদশী। এই সময়ে, শ্রাবণ মাস শুরু হয়, যা ভগবান শিবের উপাসনার জন্য বিশেষ। চাতুর্মাসে শ্রী বিষ্ণু ও শিবের পূজা করলে শুভ ফল পাওয়া যায়। এই সময়ে করা আধ্যাত্মিক কর্ম জীবনকে সমৃদ্ধিতে ভরিয়ে দেয়।

চাতুর্মাসের সময় খুব ভোরে শিব ও শ্রীবিষ্ণুর পূজা করা উত্তম। এই দিনে বিষ্ণু মন্দির পরিদর্শনের সঙ্গে ঈশ্বরের পূজা করা উচিত। গঙ্গাজল দিয়ে শিব ঠাকুরকেও স্নান করাতে হবে। ভগবান শিবের মন্ত্রগুলি এইসময় ভক্তি সহকারে নিয়মিত জপ করলে মনোবাঞ্ছা পূর্ণ হয়।

চাতুর্মাসের সময়ে বিশুদ্ধ নিয়মগুলি অনুসরণ করলে যে কোনও বর্ণের যে কোনও ব্যক্তি আধ্যাত্মিক এবং মানসিক উপকার পেতে পারেন। এই সময়টি মন এবং আত্মার পরিশুদ্ধির সময়। এ সময় উপবাস করলে শরীর ও মনে ইতিবাচক শক্তি প্রবাহিত হয় যা স্বাস্থ্যও ভালো করে তোলে।

চাতুর্মাসের সময় দানধ্যান করা উচিত। এই চার মাসের প্রতিটি দিনে করা দানকর্ম একজন ব্যক্তির জীবনে মঙ্গল ডেকে আনে এবং নেতিবাচক প্রভাব দূর করে। যে কেউ তার সামর্থ্য অনুসারে দাতব্য কাজ করতে পারেন। পরিচ্ছন্ন চিত্তে করা দান সর্বদাই শ্রেষ্ঠ বলে বিবেচিত হয়। এই সময়ে জীবের সেবা করা এবং সকলের প্রতি মমত্ববোধ জীবনকে ভাল চিন্তা থেকে সাফল্যের দিকে নিয়ে যেতে সাহায্য করে।
চাতুর্মাসের সময় তুলসী পূজা করা উচিত। দেবী তুলসী ভগবান বিষ্ণুর খুব প্রিয়, তার পূজা করলে ধন, সমৃদ্ধি এবং বৈবাহিক সুখ আসে। চাতুর্মাসে করা শুভ কর্মের ফল পাপ কর্মের অবসান ঘটায় এবং শুভ ফল প্রদান করে।

Check Also

শিবলিঙ্গ জড়িয়ে সাপ, মহাদেবের সঙ্গেই পূজিত হচ্ছেন নাগদেবতা, তুমুল ভাইরাল ভিডিও

মহাদেবের মন্দিরে মহাদেবের সঙ্গে পূজিত হচ্ছে এক বিষধর সাপ। মহাদেবের লিঙ্গ কে একেবারে জড়িয়ে ধরে ...

Leave a Reply

Your email address will not be published.