Tuesday , December 6 2022

পুরীর মন্দির ও রথ ঘিরে রয়েছে বহু অজানা রহস্যময় ঘটনা, যা আজও অমীমাংসিত!

Puri Jaganath Temple: এখানে প্রায় ছাপান্নরকম উপকরণ দিয়ে মহাপ্রসাদ তৈরি করা হয়। প্রত্যেকদিন এখানে প্রচুর পরিমাণ রান্না করা হয়, কিন্তু দেখা গেছে আজ পর্যন্ত মন্দিরের খাবার কখনওই নষ্ট হয়নি।
রাজপরিবারের নিয়ম অনুসারে, যিনি রাজা উপাধি প্রাপ্ত হন, তিনিই পুরীর রাজা জগন্নাথ (Lord Jaganath), বলরাম ও সুভদ্রাদেবীর পর পর তিনটি রথের সামনে পুষ্পাঞ্জলি প্রদান করেন এবং সোনার ঝাড়ু ও সুগন্ধী জল দিয়ে রথের সম্মুখভাগ ঝাঁট দেন। তারপরই পুরীর রথের (Puri Ratha Yatra) রশিতে টান পড়ে। শুরু হয় জগন্নাথদেবের রথযাত্রা (Jaganath Ratha Yatra)।

বাংলা আষাঢ় মাসের শুক্লপক্ষের দ্বিতীয়া তিথিতে রথ উৎসব হয়ে থাকে। এই দিন দাদা বলরাম ও বোন সুভদ্রার সঙ্গে গুন্ডিচা মন্দিরে যান জগন্নাথ। সেখান থেকে সাতদিন পর নিজ মন্দিরে ফিরে আসেন। গুন্ডিচা মন্দির ভ্রমণকেই আবার মাসির বাড়ি যাওয়া মনে করেন অনেকে। এটিই জগন্নাথ পুরী বা মাহেশ্বরী পুরীর বিশ্বচর্চিত বিখ্যাত রথযাত্রা। পুরীর মন্দির ঘিরে রয়েছে বহু অলৌকিক কাণ্ড, যার কোনও বৈজ্ঞানিক ব্যাখা এখনও পর্যন্ত খুঁজে পাননি বিশেষজ্ঞরা। শুধু তাই নয়, রথ ঘিরেও রয়েছে বহু লোকবিশ্বাস ও অলৈকিক ঘটনা, যা না দেখলে ও জানলে বিশ্বাস করা কঠিন।

১. জগন্নাথ মন্দিরের ওপরের অংশটিতে রত্নমূর নামের একটি বৃহৎ অদ্ভুত চৌম্বক শক্তি রয়েছে, যেটি মন্দিরটিকে যে কোনও রকমের ধ্বংসের হাত থেকে রক্ষা করে বলে মনে করা হয়।

২. কথিত আছে, মন্দিরের উপর দিয়ে কিছু যেতে পারে না। কোনও পাখিকেও কখনও মন্দিরের ওপর দিয়ে উড়ে যেতে দেখা যায়নি।

৩. পুরীর জগন্নাথ মন্দিরের ছায়া দিনের কোন সময়ই মাটিতে পড়ে না। এই নিয়ে যুগ যুগ ধরে চলছে নানা তর্ক-বিতর্ক, তবে সে তর্ক বিতর্কের অবসান আজও হয়নি!

৪. এমনটা শোনা যায় যে, সূর্যের অবস্থান যে দিকেই থাকুক, মাটিতে মন্দিরের চূড়ার কোনও ছায়া পরিলক্ষিত হয় না।
৫. পুরীর সমুদ্রের কাছেই স্থাপিত জগন্নাথ মন্দির। জগন্নাথ মন্দিরের মোট চারটি দরজার মধ্যে অন্যতম হলো সিংহদ্বার। দর্শনার্থীরা সিংহদ্বারের আগে অবধি সমুদ্রের হাওয়ার শব্দ শুনতে পান। কিন্তু মন্দির চত্বরে ঢোকার সঙ্গে সঙ্গেই সমুদ্রের কোনও শব্দ পাওয়া যায় না। এর কারণ হিসেবে ব্রহ্মরা বলে থাকেন, সুভদ্রাদেবী চেয়েছিলেন মন্দিরের ভেতরে যেন সবসময় শান্তি বিরাজ করে, তাই কোনও প্রকার শব্দ মন্দিরের শান্তি বিঘ্নিত করতে পারে না।
৬. মন্দিরের চূড়ায় যে ধ্বজা বা পতাকা রয়েছে, তা প্রতিদিন ভোরে লাগানো হয়। পতাকাটি সবসময় হাওয়ার বিপরীতে উড়তে দেখা যায়।

৭. পুরীর মন্দিরের উপরে ২০ কেজি ওজনের একটি সুদর্শন চক্র রয়েছে। যেটি পুরী শহরের যে কোন জায়গা থেকেই দেখা যায়। এত আড়াল আবডাল সত্ত্বেও কীভাবে পুরীর যে কোন জায়গা থেকেই সেটি দেখা যায়,তা নিয়েও গভীর রহস্য রয়েছে?

৮. পুরীতে, রথের সময় এমন কোনও বছর নেই যে সময় রথের দিন বৃষ্টি হয়নি।

৯. জগন্নাথ মন্দিরের রান্নাঘরকেও পৃথিবীর সবচেয়ে বড় রান্নাঘর মনে করা হয়। এখানে প্রায় ছাপান্নরকম উপকরণ দিয়ে মহাপ্রসাদ তৈরি করা হয়। প্রত্যেকদিন এখানে প্রচুর পরিমাণ রান্না করা হয়, কিন্তু দেখা গেছে আজ পর্যন্ত মন্দিরের খাবার কখনওই নষ্ট হয়নি।

১০. কোনও রকম আধুনিক সরঞ্জাম ছাড়াই রথ নির্মাণ করা হয়। বর্তমান সময়ের এত উন্নত প্রযুক্তির বিন্দুমাত্র সহায়তা নেওয়া হয় না রথ নির্মাণে।

১১. রথ নির্মাণের নির্দিষ্ট দৈর্ঘ্য মাপগুলো হাতে নেওয়া হয়, কোনও গজ ফিতের সাহায্যে নয়। কোনও প্রকার পেরেক, নাট বল্টু, ধাতু- কিছুর ব্যবহার নেই এখানে।

১২. প্রায় চৌদ্দশ’ কর্মী রথ নির্মাণ করেন। এখানে কাউকে আলাদা করে নিয়োগ করতে হয় না, কেননা সেই আদিকাল থেকে বংশপরম্পরায় যারা রথ তৈরি করে আসছিল, তারা আজও রথ তৈরি করে যাচ্ছে।

১৩. রথ তিনটিতে বলরাম, সুভদ্রা এবং জগন্নাথের মূর্তি থাকে ভেতরে, যা নিমকাঠ দিয়ে তৈরি এবং প্রায় ২০৮ কেজি সোনা দিয়ে সজ্জিত।

১৪. রথ নির্মাণে যে সমস্ত কাঠ ব্যবহার করা হয়, তার উৎস হলো পুরীর কাছেই দাশপাল্লা ও রানাপুর নামের দুটি জঙ্গল। যে পরিমাণ গাছ কাটা হয়, তার দ্বিগুণ পরিমাণ গাছ প্রতি বছর রোপণও করা হয় জঙ্গলে।

Check Also

শিবলিঙ্গ জড়িয়ে সাপ, মহাদেবের সঙ্গেই পূজিত হচ্ছেন নাগদেবতা, তুমুল ভাইরাল ভিডিও

মহাদেবের মন্দিরে মহাদেবের সঙ্গে পূজিত হচ্ছে এক বিষধর সাপ। মহাদেবের লিঙ্গ কে একেবারে জড়িয়ে ধরে ...

Leave a Reply

Your email address will not be published.