Sunday , February 5 2023

গণেশের হাতির মাথা, এই নিয়ে কত কথা ! কিন্তু আসল রহস্যটা জানেন কি ?

গণেশ ঠাকুরের হাতির মাথা নিয়ে রয়েছে নানান গল্প। পুরাণে বর্ণিত এই গল্প কথাগুলো আমাদের শুনতে কার না ভালো লাগে ! সেই কাহিনিগুলির ছোট্ট রহস্য কথা জেনে নিন।

কাহিনি ১: শনির দৃষ্টি

বাংলায় প্রবাদে বারবার শনির দৃষ্টি কথাটি ব্যবহার করা হয়। এই দৃষ্টি থেকে বাঁচবার উপায় কারোর নেই। গণপতির জন্মের পরেই সবাই নবজাতকের মুখ দেখতে আসেন। একমাত্র গৌরীর ভাই শনিদেব ছাড়া। দাদাকে নিজের প্রিয় সন্তানের মুখ দেখানোর জন্য রীতিমতো কাকুতি-মিনতি করতে থাকেন গৌরী। অবশেষে বোনের আবদার রাখতে শনিদেব গণপতির মুখদর্শন করেন। সাথে সাথেই শনির দৃষ্টিতে গণপতির শরীর থেকে মাথা আলাদা হয়ে যায়।

পুত্রের এরূপ অবস্থা থেকে গৌরী সম্পূর্ণরূপে ভেঙে পড়েন। শনির আদেশ মত , তখন সবাই মিলে উত্তরমুখো ভাবে শুয়ে থাকা এক বাচ্চা হাতির মুন্ডু কেটে এনে লাগিয়ে দেয় গণপতির ঘাড়ে।

কাহিনি ২ : দেবাদিদেবের রাগ

শখ করে একবার মাতা পার্বতী চন্দন দিয়ে একটি পুতুল বানিয়ে ছিলেন। পুতুলটি এত ভালো লাগে যে পুতুলে তিনি জীবন দান করেন এবং নিজের পুত্র বলে মেনে নেন। নাম দেন গণেশ। দেবী স্নান করতে যাওয়ার আগে ছোট্ট গনেশকে পাহারায় থাকতে বলে, যেন তাঁর ঘরে কেউ না প্রবেশ করে।

অপরদিকে মহাদেব এসব কথা কিছুই জানেন না। সারা দিন পর নিজের ঘরে ঢোকার সময় দেখেন নব্য বালক দাঁড়িয়ে আছে। সে কিছুতেই শিবকে ভিতরে ঢুকতে দেবেনা। এই আস্পর্ধা দেখে দেবাদিদেব অত্যন্ত ক্রুদ্ধ হয়ে যান এবং ত্রিশূল ( মতান্তরে কোপ দৃষ্টি দিয়ে ) দিয়ে গনেশের মাথা শরীর থেকে আলাদা করে দেন।

গণেশের আর্তচিৎকারে পার্বতী দৌড়ে এসে জুড়ে দেন কান্নাকাটি। অবশেষে ব্রহ্মা উত্তর দিকে মুখ করে শুয়ে থাকা একটি হাতির বাচ্চার মস্তক নিয়ে এসে বসিয়ে দেন গণেশের ঘাড়ে। ব্যাস হয়ে গেল হস্তী মস্তকের গজানন।

কাহিনি ৩ : গজাসুর

পুরাণ কথা অনুযায়ী, হাতির মস্তক বিশিষ্ট এক অসুর ছিল। শিবের ভক্ত এই অসুর দেবাদিদেবের থেকে বর প্রাপ্ত হন। বর অনুযায়ী তিনি নিজের পাকস্থলীতে শিবকে বাস করতে বলেন। শিব গজাসুরের আবেদনে রাজি হন। চিন্তিত মাতা পার্বতী সম্পূর্ণ ঘটনা ভগবান বিষ্ণুর কাছ থেকে জানতে পারেন। ফলে গজাসুরকে বধ করা হয় এবং ভগবান শিব উদ্ধার হন।

তবে গজাসুর মৃত্যুর আগে একটি ইচ্ছা প্রকাশ করেছিলেন। তাঁর ইচ্ছানুযায়ী, মৃত্যুর পর তাঁর মস্তকটি যেন পুজো পায়। তাঁর ইচ্ছা রাখতে শিব মস্তকটি গণেশের ঘাড়ে চাপিয়ে দেন। সেখান থেকেই হাতির মস্তক বিশিষ্ট গণপতি পুজো পেতে থাকেন মর্ত্যলোকে।

Check Also

মুসলিম মহিলার হাতে শক্তির দেবীর আরাধনা, কালীপুজো ঘিরে এগাঁয়ে উন্মাদনা তুঙ্গে

এক মুসলিম মহিলার হাতে পূজিত হন মা কালী। তাঁর হাতেই এপুজোর শুরু। বছরের পর বছর ...

Leave a Reply

Your email address will not be published.