Thursday , February 9 2023

কে আপনার জীবনের সবচাইতে বড় শত্র, বলে দেবে চাণক্য নীতি ?

চাণক্যের মতে, আমরা লেখাপড়ার মাধ্যমে যা শিখি তা সারাজীবনই আমাদের পাথেয় হয়ে যায়। কেউই এই জ্ঞান আমাদের থেকে ছিনিয়ে নিতে পারে না।
বিষ্ণু গুপ্ত, কৌটিল্য নামেও পরিচিত ছিলেন চাণক্য (Chanakya)। তিনি ছিলেন একাধারে কূটনীতিজ্ঞ, রাজ-উপদেষ্টা, অর্থনীতিবিদ, দার্শনিক, শিক্ষক এবং সুবিচারক। প্রজন্মের পর প্রজন্মকে চাণক্য তাঁর নীতি ব্যক্ত করে জীবনে সাফল্যের সঙ্গে এগিয়ে চলার পথের দিশা দিয়ে গিয়েছেন। আধুনিক জীবনেও বারংবার তাঁর নীতি অভ্রান্ত বলেই প্রমাণিত হচ্ছে। চাণক্য একটি অসাধারণ পুস্তক রচনা করে গিয়েছেন যার নাম অর্থশাস্ত্র (Arthashast)। এখনও বহু মানুষ সেই বইয়ে লেখা নীতি অনুসরণ করে চলেন। নীতিশাস্ত্রের পণ্ডিত ছিলেন চাণক্য। পুস্তকে তাঁর প্রণীত নীতিগুলিই গ্রন্থিত হয়েছে। সেই গ্রন্থেই তিনি জীবনে সুখী হওয়ার আদর্শ উপায় সম্পর্কে জানিয়েছেন।

তিনি তাঁর রচিত গ্রন্থে সবকটি নীতিই বিশ্লেষণ করলে বোঝা যায়, সমস্ত নীতিতেই রয়েছে বাস্তব জ্ঞান এবং শক্তিশালী যুক্তি। তাই চাণক্যের নীতি অনুসরণ করলে কোনওদিন সুখ ও শান্তির অভাব ঘটে না। লাভ হয় প্রগতিশীল জীবন। চাণক্যের মতে, আমরা লেখাপড়ার মাধ্যমে যা শিখি তা সারাজীবনই আমাদের পাথেয় হয়ে যায়। কেউই এই জ্ঞান আমাদের থেকে ছিনিয়ে নিতে পারে না। দেখা যাক সুখী ও সমৃদ্ধশালী জীবন পেতে চাণক্য আমাদের কোন নীতি অনুসরণ করতে বলেছেন—

• বৃদ্ধ এবং নেতৃস্থানীয় ব্যক্তির প্রতি বিনয়ী হতে হবে। কথা বলতে হবে ধীরে এবং মধুর স্বরে। জীবনযাপনের ধরন এমনই হতে হবে যাতে যে কোনও কাজে এবং ব্যবসায় সফলতা আসে।
• অস্থির মনকে শান্ত করুন। মন শান্ত হলে তবেই প্রকৃত বন্ধুকে চেনা যায়।
• অন্যের আনন্দে যারা দুঃখপ্রকাশ করে, তারা কোনওদিনই সুখী হতে পারে না। চাণক্যনীতির ১৩তম অধ্যায়ের ১৫তম শ্লোকে এইসকল কথার উল্লেখ রয়েছে। তিনি আরও বলেছেন মনে তৃপ্তি না থাকলে কোনও কাজেই সফল হওয়া যায় না।

• চাণক্য মতে রাগ হল আমাদের সবচাইতে বড় শত্রু। কারণ ক্রোধান্বিত অবস্থায় কোনও সিদ্ধান্তই সঠিকভাবে নেওয়া সম্ভব হয় না। রাগত অবস্থায় কোনটি ভুল ও কোনটি ঠিক তা স্পষ্টভাবে স্থির করা যায় না।
• কখনওই অন্ধভাবে বিশ্বাস করে নিজের সবচাইতে বড় গোপনীয় কথাটি কারও কাছেই ব্যক্ত করা উচিত নয়। ওই গোপন কথাটির কারণেই কোনও না কোনও সময় সেই ব্যক্তি আপনার ধ্বংসের কারণ হতে পারে। চাণক্য বলেছেন সবচাইতে নিকট ব্যক্তিটিই আমাদের সবচাইতে বড় শত্রু হয়ে উঠতে পারে।

• যে জীবন আমরা পেয়েছি তা খুবই ছোট। আমরা আমাদের ভুল থেকেই শিক্ষা নিই। সুতরাং একজন ব্যক্তির উচিত নিজের ভ্রান্তির প্রতি মনোযোগী হওয়া। সেক্ষেত্রে প্রতিটি ভুল থেকে মিলবে শিক্ষা। বাস্তব জীবনের অভিজ্ঞতা থেকে পাওয়া শিক্ষার কোনও বিকল্প হতে পারে না।
• প্রয়োজনের চাইতে বেশি দৃঢ় মনোভাব পোষণ করলে সমগ্র বিশ্বই আপনাকে বোকা বানাবে। অরণ্যের মধ্যে সবচাইতে সোজা গাছটিই কিন্তু আগে কাটা পড়ে।
• কখনওই লোভের দ্বারা পরিচালিত হওয়া উচিত নয়। লোভের বশবর্তী হলে বারংবার ভুল পদক্ষেপ নেওয়ার আশঙ্কা বাড়ে।

Check Also

মুসলিম মহিলার হাতে শক্তির দেবীর আরাধনা, কালীপুজো ঘিরে এগাঁয়ে উন্মাদনা তুঙ্গে

এক মুসলিম মহিলার হাতে পূজিত হন মা কালী। তাঁর হাতেই এপুজোর শুরু। বছরের পর বছর ...

Leave a Reply

Your email address will not be published.