Friday , September 17 2021

করোনা সংক্রমণ নাকি ডেঙ্গু, কোন রোগে আক্রান্ত আপনি, বুঝেনিন এভাবে!

করোনা আতঙ্কের পাশাপাশি বর্তমানে দেশে ডেঙ্গুর উপদ্রব বেড়েছে। এছাড়া ম্যালেরিয়ার ঝুঁকিও রয়েছে। কোভিড-১৯ এর মতো ডেঙ্গু ও ম্যালেরিয়াও সংক্রামক রোগ। ডেঙ্গু ও ম্যালেরিয়া উভয় রোগই মশার কামড়ে ছড়ায়।

কোভিড-১৯, ডেঙ্গু ও ম্যালেরিয়ায় আক্রান্ত হলে উপসর্গ প্রকাশ পেয়ে থাকে এবং এসব উপসর্গের মধ্যে বেশ মিল রয়েছে।একারণে উপসর্গ দেখে কোভিড-১৯ নাকি ডেঙ্গু বা ম্যালেরিয়া হয়েছে তা ভেবে অনেকেই বিভ্রান্ত হতে পারেন। এছাড়া চিকিৎসকেরা একইসময়ে দুটি ভাইরাসে সংক্রমিত রোগীও পেয়েছেন, অর্থাৎ যার কোভিড-১৯ হয়েছে তার ডেঙ্গুও হয়েছে।এখন প্রশ্ন হলো, এই তিনটি রোগের মধ্যে ঠিক কোনটা হয়েছে তা বুঝবেন কীভাবে?

* কোভিড-১৯, ডেঙ্গু ও ম্যালেরিয়া যেভাবে ছড়ায়

কোভিড-১৯ হলো শ্বাসতন্ত্রীয় সংক্রমণ, যা সাধারণত সংক্রমিত ব্যক্তির কাশি বা হাঁচির মাধ্যমে ছড়িয়ে থাকে। কোভিড রোগীর কাশি-হাঁচির মাধ্যমে নির্গত তরলকণাতে সংক্রমণ সৃষ্টিকারী করোনাভাইরাস (সার্স-কভ-২ ভাইরাস) থাকে। এসব তরলকণা সুস্থ ব্যক্তির হাতের সংস্পর্শে আসলেও সংক্রমণটি ছড়াতে পারে, যদি তিনি সাবান-পানিতে হাত না ধুয়ে থাকেন বা হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহার না করেন। অন্যদিকে, সংক্রমিত মশা কামড়ালে ডেঙ্গু ও ম্যালেরিয়া হয়। সংক্রমিত এডিস মশার কামড়ে ডেঙ্গু হয় এবং সংক্রমিত অ্যানোফিলিস মশার কামড়ে ম্যালেরিয়া ছড়ায়।

* কোভিড-১৯, ডেঙ্গু ও ম্যালেরিয়ার উপসর্গ

কোভিড-১৯ ও ডেঙ্গু হলো ভাইরাস জনিত সংক্রমণ এবং ম্যালেরিয়া হলো প্যারাসাইট জনিত সংক্রমণ। এসব সংক্রমণে অনেক উপসর্গ প্রকাশ পেতে পারে। তিনটি সংক্রমণে যেসব উপসর্গের মিল পাওয়া গেছে তা হলো- জ্বর ও মাথাব্যথা। দুটি সংক্রমণের মধ্যে মিল খুঁজলে আরো সাদৃশ্যযুক্ত উপসর্গ পাওয়া যায়। কিছু রোগের মধ্যে উপসর্গগত মিল থাকলে উপসর্গ বিবেচনায় প্রকৃত রোগ শনাক্ত করা কঠিন হয়ে যায়। কোভিড-১৯, ডেঙ্গু ও ম্যালেরিয়া সবগুলো সংক্রমণই ভয়াবহ পরিণতির কারণ হতে পারে। তাই এসব সংক্রমণ সম্পর্কে যথাসম্ভব জ্ঞান রাখতে হবে।

ডেঙ্গু ভাইরাসের চার ধরনের সেরোটাইপ দ্বারা এডিস মশা সংক্রমিত হলে এবং ওই মশা সুস্থ ব্যক্তিকে কামড়ালে ডেঙ্গু সংক্রমণ হয়ে থাকে। চার রকম সেরোটাইপ আছে বলে একজন মানুষ চারবার ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হতে পারেন। ডেঙ্গু রোগীর উল্লেখযোগ্য উপসর্গসমূহ হলো- উচ্চ মাত্রার জ্বর, তীব্র মাথাব্যথা, জয়েন্ট ব্যথা, পেশি ব্যথা, বমিভাব, পেট ব্যথা ও ডায়রিয়া।

প্লাসমোডিয়াম নামক প্যারাসাইটে সংক্রমিত মশার কামড়ে ম্যালেরিয়া হয়। সঠিক সময়ে চিকিৎসা শুরু না করলে সংক্রমণটি প্রাণনাশক হতে পারে। ম্যালেরিয়ার উল্লেখযোগ্য উপসর্গসমূহ হলো- বিপজ্জনক জ্বর, শীতশীত ভাব, শরীরে কাঁপুনি, সারা শরীরে তীব্র ব্যথা, মাথাব্যথা, ক্লান্তি, ঘেমে যাওয়া ও বিরলক্ষেত্রে খিঁচুনি।

Check Also

রেললাইনের ওপর কোনো পশুপাখি বা মানুষ দেখেও কেন ড্রাইভাররা ব্রেক মারেন না জানেন কি? রইল বিস্তারিত।

আপনারা যারা বা আমরা যারা ট্রেনের পরিসেবা গ্রহণ করে থাকি তার একটা জিনিস ভালো মত ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *